শুক্রবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২৩, ০৬:০০ পূর্বাহ্ন

মুরগি পালন ও আদর্শ খামার স্থাপনা

প্রতিনিধির নাম / ১১৭ বার
আপডেট : রবিবার, ১০ এপ্রিল, ২০২২

নিউজ ডেস্ক,নরসিংদী জার্নাল।। মুরগি পালন ও আদর্শ খামার স্থাপনা।

১. আর্থসামাজিক উন্নয়নঃ
হাঁস-মুরগির গুরুত্ব অপরিসীম দেশের আর্থসামাজিক উন্নয়ন। তুলনামূলক ভাবে স্বল্প বিনিয়োগ এবং অল্প ভূমিতে বাস্তবায়নযোগ্য বিধায় জাতীয় অর্থনীতিতে এর গুরুত্ব উত্তোরোত্তর বৃদ্ধি পাচ্ছে।

২. আত্ম-কর্মসংস্হানঃ
হাঁস-মুরগি পালন, বেকার যুব সমাজ, ভূমিহীন কৃষক এবং দরস্ত গ্রামীন মহিলাদের আত্ম-কর্মসংস্হানের একটি উল্লেখযোগ্য উপায়।

৩. প্রাণিজ আমিষের উৎসঃ
দেশের প্রায় অধিকাংশ মানুষ পুষ্টি সমস্যায় আক্রান্ত। হাঁস-মুরগির মাংস ও ডিম উন্নতমানের প্রাণিজ আমিষের উৎস। মাংস ও ডিমের মাধ্যমে প্রাণিজ আমিষের ঘাটতি পূরণ করে এই সমস্যা সমাধান করা সম্ভব।

৪. আয়ের উৎসঃ
আদিকাল থেকে দেশের গ্রাম বাংলার মহিলারা বাড়তি আয়ের উৎস হিসাবে হাঁস-মুরগি পালন করে আসছে।

৫. জৈব সারঃ
হাঁস-মুরগির বিষ্ঠা উন্নতমানের জৈব সার যা ব্যবহার করে কৃষি ফসল উৎপাদনে লাভবান হওয়া যায়।

৬. অন্যান্য শিল্পের উপকরণ হিসাবে হাঁস-মুরগির উপজাতের ব্যবহারঃ
হাঁস-মুরগির পালক দিয়ে খেলার সামগ্রী, ঝাড়- ইত্যাদি এবং রক্ত ও নাড়িভূড়ি প্রক্রিয়াজাত করে পশু-পাখীর খাদ্য তৈরীর জন্য আলাদা শিল্প গড়ে উঠেছে।

৭. জ্বালানী সাশ্রয়েঃ
পোল্ট্রির বর্জ্য এবং লিটার ব্যবহার করে বায়োগ্যাস উৎপাদন করা সম্ভব যা ব্যবহারের মাধ্যমে জ্বালানী সাশ্রয় করে জাতীয় অর্থনীতিতে ভূমিকা রাখা যায়।

৮. আয়ের উৎসঃ
আদিকাল থেকে গ্রাম বাংলার মহিলারা  তাদের বাড়তি আয়ের উৎস হিসাবে হাঁস-মুরগি পালন করে আসছে। এ পালনের দ্বারা দেশের আমিষের চাহিদা মিটিয়ে অর্থনি

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পুর্ণ বেআইনি এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধ। তাসরিফ/ নরসিংদী জার্নাল

Facebook Comments Box


এ জাতীয় আরো সংবাদ